লিথুনিয়া কাজের ভিসা ২০২৪

লিথুনিয়া, বাল্টিক সাগরের তীরে অবস্থিত একটি উন্নত ইউরোপীয় শেনজেনভুক্ত দেশ, ক্রমবর্ধমানভাবে বাংলাদেশী শ্রমিকদের কাছে আকর্ষণীয় কর্মক্ষেত্র হয়ে উঠছে। উচ্চ বেতন, উন্নত জীবনযাত্রার মান এবং সুন্দর পরিবেশ লিথুনিয়াকে কাজের জন্য একটি আকর্ষণীয় গন্তব্য করে তোলে। বর্তমানে খুব অল্প খরচে বাংলাদেশ থেকে লিথুনিয়ায় কাজের জন্য যাওয়া যাচ্ছে।

সাধারণত ভিসা ক্যাটাগরির উপর নির্ভর করে সম্পূর্ণ সরকারিভাবে ৪ থেকে ৫ লক্ষ টাকা খরচ করলেই ইউরোপের সুন্দর এই দেশটিতে যাওয়া যাচ্ছে। বর্তমানে যেহেতু বাংলাদেশে বেকারত্বের হার বেড়ে চলেছে তাই অনেকেই প্রবাসে চলে যেতে চায়। আপনিও যদি বাংলাদেশ থেকে কাজের জন্য প্রবাসে যেতে চান তাহলে এটি হতে পারে আপনার জন্য একটি সুবর্ণ সুযোগ।

ইউরোপ মহাদেশের মতো সুন্দর এই একটি দেশে খুব অল্প খরচে বিভিন্ন কাজের জন্য চাইলে যেতে পারবেন। বর্তমানে বাংলাদেশ থেকে তার ধরনের ভিসা চালু রয়েছে লিথুনিয়া যাওয়ার জন্য। ভিসা ক্যাটাগরির উপর ভিত্তি করে আপনার ভিসার দাম ও কম বেশি হয়ে থাকে। তবে সর্বনিম্ন ৪ থেকে 5 লক্ষ টাকা খরচ করলেই আপনি কাজের ভিসা পেতে পারেন।

লিথুনিয়া কাজের ভিসা ২০২৪

সিজনাল ও নন সিজনাল দুই ধরনের ভিসা পাওয়া যায়। লিথুনিয়া যাওয়ার জন্য বর্তমানে এই ধরনের বিষয়গুলো চালু রয়েছে। ইউরোপ মহাদেশের যেকোনো একটি দেশে সরকারিভাবে যাওয়ার জন্য যারা দীর্ঘদিন যাবত অপেক্ষায় ছিলেন তাদের জন্য এখন উপযুক্ত সময়। সরকারিভাবে আপনি অল্প কিছু টাকা খরচ করলেই বাংলাদেশ থেকে লিথুনিয়ায় বিভিন্ন কাজের জন্য যেতে পারবেন।

ইউরোপের যেকোনো একটি দেশে পাড়ি জমানো বাংলাদেশের অনেক বেকার যুবকের অনেক বড় একটি স্বপ্ন। আপনি যদি সাধারণ কর্মী হয়ে থাকেন অথবা অভিজ্ঞ কর্মী হয়ে থাকেন তাহলে উপায় ভাবে আপনি লিখেনিয়া যেতে পারবেন। নিচের অংশ থেকে দেখে নিন বর্তমানে কি কি ভিসা চালু রয়েছে।

সাধারণ কর্মীদের জন্য = ওয়ার্ক পারমিট ভিসা।
অভিজ্ঞ কর্মীদের জন্য = EU Blue Card .
সিজনাল = কাজের ভিসা।
ইন্ট্রা = কোম্পানির ভিসা

আরও জানুনঃ লিথুনিয়া ১ টাকা বাংলাদেশের কত টাকা

লিথুয়ানিয়া ভিসা পেতে কতদিন লাগে?

অনেকের মনেই প্রশ্ন জাগতে পারে যে লিথুনিয়া ভিসা পেতে কতদিন লাগে। স্বাভাবিকভাবেই ১৫ কার্য দিবসের মধ্যেই ভিসা পাওয়া যায়। কিন্তু যদি আবেদনের পরিমাণ অনেক বেশি হয়ে থাকে তাহলে তা ৪৫ কার্যদিবস পর্যন্ত লাগতে পারে। তবে আপনি যদি সঠিকভাবে আপনার ভিসা আবেদন করে থাকেন এবং আপনার সমস্ত কাগজপত্র শতভাগ সঠিক থাকে তাহলে অল্প সময়ের ভিতরেই লিথুনিয়া যাওয়ার ভিসা পেতে পারেন।

লিথুনিয়া কাজের বেতন কত

স্বাভাবিকভাবেই আমরা কোন কাজে যোগদান করার পূর্বে আমাদের মাথায় একটি বিষয় ঘুরপাক খায়। সেটি হচ্ছে আমাদের বেতন কত হতে পারে। ঠিক তেমনি বর্তমানে যেহেতু লিথুনিয়া যাওয়ার ভিসা চালু হয়েছে তাই অনেকেই জানতে চাচ্ছে যে লিটু নিয়ে কাজের বেতন কত টাকা হতে পারে। একটি বিষয়ে অবশ্যই মনে রাখা জরুরি তা হচ্ছে বাংলাদেশের তুলনায় লিথুনিয়ার টাকার মান অধিক বেশি।

বর্তমানে লিথুনিয়ার এক টাকা সমান বাংলাদেশের প্রায় ১২০ টাকার সমান। অর্থাৎ বাংলাদেশি টাকায় আপনি যে বেতন পাইতেন তার ১২০ গুণ বেশি বেতন লিথুনিয়া থেকে পেতে পারেন। কাজের উপর নির্ভর করে বা আপনার ভিসা ক্যাটাগরির উপর নির্ভর করে আপনি প্রতি মাসে সর্বনিম্ন ৫০০ থেকে ৬০০ ইউরো পর্যন্ত ইনকাম করতে পারবেন।

সর্বশেষ কথা

অল্প খরচে যারা ইউরোপ মহাদেশের ভালো একটি দেশে যেতে ইচ্ছুক তাদের জন্য এটি একটি অনেক অনেক বড় সুযোগ। তাই অবশ্যই সময় নষ্ট না করে এই সুযোগটি কাজে লাগানোর চেষ্টা করুন। আজকের এই পোস্টে আমি আপনার সাথে লিথুনিয়া কাজের ভিসা সম্পর্কে বিভিন্ন তথ্য প্রদানের চেষ্টা করেছিলাম। আশা করি ইতিমধ্যেই আপনি এই দেশে যেতে হলে কি কি পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে তা জানতে পেরেছেন।

আরও জানুনঃ

লিথুনিয়া ওয়ার্ক পারমিট ভিসা ২০২৪

লিথুনিয়া বেতন কত

Leave a Comment