ওয়ালটন চার্জার ফ্যানের দাম ২০২৪

এই ওয়ালটন হচ্ছে বাংলাদেশের একটি জনপ্রিয়ই লেক্ট্রনিক পণ্যের ব্র্যান্ড কোম্পানি। পুরো বাংলাদেশে এই ওয়ালটন কোম্পানির অনেক জনপ্রিয়তা রয়েছে। এই কোম্পানি দ্বারা সকল ইলেকট্রনিক পণ্যগুলো অনেক ভালো মানের হয়ে থাকে এবং অনেকটাই টেকসই হয়ে থাকে। এখন আপনি যদি এই ওয়ালটন কোম্পানির চার্জার ফ্যান ক্রয় করতে চান তাহলে ভালো একটি সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। তবে এই পণ্য ক্রয় করার পূর্বে অবশ্যই আপনাকে ওয়ালটন চার্জার ফ্যানের দাম ২০২৪ জানতে হবে।

আর বাংলাদেশে অনেকটা লোডশেডিং এর কারণে সাধারণ জনগণ  বিভিন্ন হয়রানির শিকার। বিশেষ করে গ্রীষ্মকালে গরমে অসস্তিতে সকল মানুষ নাজেহাল। প্রচন্ড তাপদাহ থেকে বেঁচে থাকতে মানুষ এখন চার্জার ফ্যান ক্রয় করছেন। তবে বাংলাদেশের বিভিন্ন কোম্পানির চার্জার প্রতিনিয়ত তৈরি হচ্ছে। চার্জার ফ্যানগুলো বিভিন্ন দামে সাধারণ জনগণের কাছে বিক্রি করা হয়। আর আমাদের এই পোস্ট থেকে ওয়ালটন চার্জার ফ্যানের দাম কত তা বিস্তারিত জানতে পারবেন। অতএব সম্পূর্ণ পোস্ট প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত একবার মনোযোগ সহকারে পড়ুন।

ওয়ালটন চার্জার ফ্যানের দাম

এই জনপ্রিয় ওয়ালটন কোম্পানি বিভিন্ন গ্রুপে পুরো বাংলাদেশে অবস্থিত রয়েছে। এই ওয়ালটন ইলেকট্রনিক পণ্যগুলো বিশেষ গুরুত্ব সহকারে তৈরি করা হয় এবং অনেকটা বৈশিষ্ট্যপূর্ণ হয়ে থাকে। ওয়ালটন বাংলাদেশের বৃহত্তম কোম্পানিগুলোর মধ্যে একটি। তবে আপনি যদি বিদ্যুৎ ছাড়া ঘরে আরামদায়ক শীতল বাতাস অনুভব করতে চান তাহলে অবশ্যই ওয়ালটন চার্জার ফ্যান ক্রয় করুন।

আর আমাদের এই পোস্টে ওয়ালটন চার্জার ফ্যানের দাম কত তা বিস্তারিতভাবে উল্লেখ করা হয়েছে। এমনকি আপনাদের জানানোর সুবিধার্থে এই ওয়ালটন ফ্যানের ব্যাটারি সম্পর্কিত মূল্য হলে করা হয়েছে। এবং বাংলাদেশের বিভিন্ন কোম্পানি চার্জার ফ্যান থাকা সত্ত্বেও কেন ওয়ালটন চার্জার ফ্যান ক্রয় করবেন সে বিষয়েও এখানে উল্লেখ করা হয়েছে। অতএব ওয়ালটন চার্জার ফ্যানের দাম কত সঠিক এবং আপডেট মূল্য জানতে এই পোস্ট সম্পন্ন পড়ুন। 

চার্জার ফ্যানের দাম কত ২০২৪

বাংলাদেশে বিভিন্ন কোম্পানির চার্জার ফ্যান পাওয়া যায়। তবে প্রত্যেক কোম্পানির বৈশিষ্ট্যের উপর ভিত্তি করে মূল্য তালিকা অনেকটা ভিন্ন রকম। যেমন অন্যান্য কোম্পানির চার্জার ফ্যান ১০০০ টাকায় পেয়ে যাবেন। আবার ৫০০০-৭০০০ হাজার টাকায়ও পেয়ে যাবেন।

তবে বাংলাদেশ ওয়ালটন কোম্পানি অনেকটা জনপ্রিয় এবং অন্যান্য কোম্পানি থেকে ভালো মানের  পণ্য বাজারে প্রদান করে থাকেন। তাই এই ওয়ালটন কোম্পানির চার্জার ফ্যানের মূল্য অন্যান্য কোম্পানির থেকে একটু বেশি। এমনকি এ চার্জার ফ্যানগুলো বিদ্যুৎ সাশ্রয় করে থাকে।

এমনকি এক চার্জে অনেকক্ষণ পর্যন্ত বাতাস খেতে পারবেন। চলুন নিচের প্যারাগ্রাফ থেকে ওয়ালটন চার্জার ফ্যানের দাম কত এবং সঠিক আপডেট মূল্য জেনে নেই। আর এই চার্জার ফ্যানগুলোর সঠিক মূল্য প্রত্যেকের জেনে নেওয়া উচিত। কেননা হলে বিভিন্ন দোকানিদের হাত থেকে প্রতারিত হতে পারেন।

Walton চার্জার ফ্যান বাংলাদেশ প্রাইস

বাংলাদেশের বাজারে ৩ ধরনের ওয়ালটন ফ্যান সবথেকে বেশি চলতেছে। এর মধ্যে হচ্ছে ১২ ইঞ্চি ১৩ ইঞ্চি এবং ১৪ ইঞ্চি। এত ফ্যানের বিভিন্ন রকম বৈশিষ্ট্য এবং ব্যাটারির মানের উপর ভিত্তি করে  এই ওয়ালটন ফ্যানের চার্জারের মূল্য নির্ধারণ করা হয়ে থাকে।

অর্থাৎ আপনি যদি ওয়ালটন চার্জার ফ্যান ক্রয় করতে চান তাহলে আপনাকে সর্বনিম্ন ৪০০০ টাকা বাজেট রাখতে হবে। আর সর্বোচ্চ ৫০০০-৭০০০টাকা বাজেট রাখতে হবে। অতএব নিচে কয়েকটি ওয়ালটন চার্জার ফ্যানের দাম কত  নিচে তা তালিকা আবার দেওয়া হলো।

  • WRTF12A দাম 3,990 টাকা
  • WRTF14A দাম 4,390 টাকা
  • W17OA-EM-MS দাম 5,700 টাকা
  • W17OA-MS দাম6,100 টাকা
  • W17OA-AS দাম 6,490 টাকা

Walton চার্জার ফ্যানের ব্যাটারির দাম কত ২০২৪

সম্ভবত এই ওয়ালটন চার্জার ফ্যানের ব্যাটারিগুলো ৬ ভোল্টের অথবা ১২ ভোল্টের হয়ে থাকে। তবে বেশি দামের এই চার্জার ফ্যানগুলোতে ভালো মানের ব্যাটারি দেওয়া থাকে। আর সাধারণত এই ব্যাটারিগুলো ৪.৫ এম্পিয়ারের হয়ে থাকে। সর্বনিম্ন ৫৫০ টাকায় walton চার্জার ফ্যানের ব্যাটারি পাওয়া থাকে এবং চার্জার ফ্যানগুলোতে স্থাপন করা থাকে। এছাড়াও কিছু কিছু ওয়ালটন চার্জার ফ্যানগুলোতে ১০০০ থেকে ১৫০০ টাকার ব্যাটারি স্থাপন করা থাকে।

কেন ওয়ালটন চার্জার ফ্যান কিনবেন?

ওয়ালটন চার্জার ফ্যানগুলো আধুনিক ডিজাইন, ও শক্তিশালী হওয়ায় অনেকেই এই কোম্পানির চার্জার ফ্যান কিনতে আগ্রহী প্রকাশ করে থাকেন। এই ফ্যান আপনি অনেকদিন পর্যন্ত ব্যবহার করতে পারবেন। এবং অনেকক্ষণ চার্জ ব্যাকআপ পেয়ে যাবেন। খুব দ্রুত চার্জ হবে এবং আপনাকে শীতল বাতাস প্রদান করবে।

এবং ওয়ালটন চার্জার ফ্যান পোর্টেবিলিটির জন্য ডিজাইন করা হয়েছে। এছাড়াও এই ওয়ালটন চার্জার ফ্যানকে যেকোনো জায়গায় গ্রহণ করতে পারবেন। বিশেষ করে ভ্রমণ করার ক্ষেত্রেও আপনি যেকোনো জায়গায় নিয়ে যেতে পারবেন। ফ্যানের পাখার গতি অর্থাৎ ইচ্ছেমতো মোটর স্পিড নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন। আরো ইত্যাদি কারণ রয়েছে যেগুলো একজন ক্রেতাকে এ ওয়ালটন চার্জার ফ্যান কিনতে আগ্রহী করেন। 

শেষ কথা

আশা করতেছি আপনারা আমাদের এই পোস্ট থেকে ওয়ালটন চার্জার ফ্যানের দাম কত তা জানতে পেরেছেন। আর আমরা এখানে আপনাদের জন্য সঠিক এবং আপডেট মূল্য তালিকা উল্লেখ করেছি। তাই যে কোন দোকানে গিয়ে এই ওয়ালটন চার্জার ফ্যান ক্রয় করার পূর্বে অবশ্যই আমাদের এখান থেকে দাম জেনে নিন। যদি এই পোস্ট আপনাদের কাছে ভাল লেগে থাকে। তাহলে অবশ্যই আপনার আশেপাশের ব্যক্তিদের কে এই পোস্ট শেয়ার করে জানিয়ে দিবেন। ধন্যবাদ

Price Fact
Price Fact
Articles: 77

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *