NID দিয়ে কয়টি সিম রেজিস্ট্রেশন চেক করুন

পূর্বে বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে সিম কার্ড রেজিস্ট্রেশন করার ছিল না। বিধায় ইচ্ছামত একজনের সিম কার্ড অন্যজন ব্যবহার করত, এতে ব্যবহারকারীর কোন সমস্যা হতো না। কিন্তু বর্তমানে বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে সকল সিম রেজিস্ট্রেশন করা। এবং সকল সিম রেজিস্ট্রেশন করার পূর্বে হাতের আঙ্গুলের ছাপ এবং জাতীয় পরিচয় পত্রের খুব ভালোভাবে ভেরিফিকেশন করা হয়। তবে যাদের পূর্ব থেকে আজ পর্যন্ত এনআইডি দিয়ে কতগুলো রেজিস্ট্রেশন করা হয়েছে তা অনেকেই হয়তো জানেন না। অতঃপর যারা জানতে এসেছেন তারা NID দিয়ে কয়টি সিম রেজিস্ট্রেশন চেক করুন।

আপনার জাতীয় পরিচয় পত্র অথচ অন্য কেউ রেজিস্ট্রেশন করে সিমকার্ড ব্যবহার করছে,এতে করে আপনার ভবিষ্যতে বিভিন্ন কঠিন বিপদে পড়তে পারেন। তা সতর্কতার সহিত কতগুলো সিম আপনার ভোটার আইডি কার্ড দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করা আছে তা আজকের এই পোস্ট থেকে জেনে নিন। যদি অপ্রয়োজনীয় সিম কার্ড এনআইডি দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করা থাকে তাহলে রেজিস্ট্রেশন বাতিল করতে পারবেন। তাই আজকের এই আর্টিকেলের মাধ্যমে NID দিয়ে কয়টি সিম রেজিস্ট্রেশন চেক করুন।

NID দিয়ে কয়টি সিম রেজিস্ট্রেশন চেক করুন

একজন ব্যক্তির NID কার্ড বা ভোটার আইডি কার্ড দিয়ে সর্বোচ্চ ১৫টি সিম রেজিস্ট্রেশন করতে পারবে। পূর্বে যেহেতু সিম কার্ড রেজিস্ট্রেশনে এত নিয়ম এবং সতর্কতার বালাই ছিল না, তাই অনেকেই নিজ ভোটার আইডি কার্ড দিয়ে আত্মীয়দেরকে বা পরিচিতদেরকে সিম রেজিস্ট্রেশন করে দিয়েছেন।

এমত অবস্থায় আপনার এই সিম কার্ডগুলি ভবিষ্যতে যেকোনো বিপদের কারণ হয়ে যেতে পারে। তাই এ বিষয়ে প্রত্যেক নাগরিকের সতর্ক থাকা উচিত। এবং সতর্কতার সহিত NID দিয়ে কয়টি সিম রেজিস্ট্রেশন চেক করুন। এটি অনেক গুরুত্বপূর্ণ, জেনে নিন আপনার এন আইডি দিয়ে কয়টি অবাঞ্চিত সিম রেজিস্ট্রেশন করা আছে।

যদি থাকে তাহলে অতিসত্বর অবাঞ্ছিত এবং অতিরিক্ত রেজিস্ট্রেশন করা সিম বাতিল করে দিন। তবে কিভাবে এন আইডি দিয়ে আপনার সিম রেজিস্ট্রেশন করবেন তার বিস্তারিত একটি আলোচনা এখানে করা হয়েছে। খুব সহজেই আপনি এই পোস্ট থেকে ইন আইডি দিয়ে কয়টি সিম রেজিস্ট্রেশন করা আছে তা চেক করতে পারবেন। তাই সম্পূর্ণ পোস্ট প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত দেখুন।

NID দিয়ে কয়টি সিম রেজিস্ট্রেশন করা আছে জেনে নিন

আমরা অনেক বাঙালি রয়েছি যারা নিজের এন আইডি কার্ড দিয়ে অনেকে অন্যদেরকে সিম রেজিস্ট্রেশন করে দিয়েছেন। হয়তো নিকট আত্মীয়দের কে ব্যবহার করতে দিয়েছেন আপনার দেওয়া ইন আইডি কার্ড দ্বারা রেজিস্ট্রেশন কিন্তু একটি সিম কার্ড। আপনি নিজের অজান্তেই ভবিষ্যতে হয়তো কোন বিপদের সম্মুখীন হতে পারেন এ অবাঞ্চিত রেজিস্ট্রেশন করা সিমের মাধ্যমে। তাই সতর্ক থাকুন।

এছাড়াও আপনি যখন নতুন কোন সিম রেজিস্ট্রেশন করতে যাবেন। তখন রেজিস্ট্রেশন করার ক্ষেত্রে বর্তমানে কিছু প্রচারে করেছে যারা অনভিজ্ঞ ব্যক্তিদের থেকে একের অধিক সিম রেজিস্ট্রেশন করে নিয়ে থাকেন। এই প্রক্রিয়ায় ব্যক্তির অগোচরে অন্য সিম রেজিস্ট্রেশন করে নিচ্ছে অথচ একটি জানতেই পারছে না।

তাই সিম রেজিস্ট্রেশন করার ক্ষেত্রে ওইসব ব্যক্তিদের থেকে সাবধানে থাকুন। বিভিন্ন  প্রতারকদের কাছে এ সকল ব্যক্তি অন্যের রেজিস্ট্রেশন করা সিম বিক্রি করে থাকে। যার পরবর্তীতে তারা বিভিন্ন অপরাধে করতে এই সকল সিম ব্যবহার করে থাকেন। অতঃপর এখনই NID দিয়ে কয়টি সিম রেজিস্ট্রেশন চেক করুন।

আপনার নামে কয়টি সিম রেজিস্ট্রেশন করা আছে?

বিটিআরসি (BTRC)-এর ঘোষণা অনুযায়ী একজন ব্যক্তি সর্বোচ্চ 15 টি সিম রেজিস্ট্রেশন করতে পারেন।  এর বেশি করতে পারবে না। এবং যদি আপনার নামে অপ্রয়োজনীয় সিম রেজিস্ট্রেশন করা থাকে তা খুব সহজে বাতিল করতে পারবেন।

তবে তার পূর্বে কয়টি সিম রেজিস্ট্রেশন করা আছে তা জেনে নিন। এ প্রক্রিয়া একদম সহজ, এতে কোন ইন্টারনেট কানেকশন লাগবে না।  যে কোন একটু বাটন ফোন অথবা স্মার্ট ফোন হলেই চলবে। অতঃপর আপনি অনেক কয়টি সিম রেজিস্ট্রেশন করা আছে জানতে দেওয়া প্রক্রিয়াটি লক্ষ্য করুন।

  • সর্বপ্রথম আপনার মোবাইল এর ডায়াল কোডে পৌঁছে যান।
  • এরপর *16001# লিখে ডায়াল করুন।
  • অতঃপর আপনার এনআইডি কার্ডের শেষের চারটি ডিজিট উল্লেখ করে সেন্ড বাটনে ক্লিক করুন।
  • অর্থাৎ পরবর্তীতে ১৬০০১ নম্বর থেকে  ফিরতি একটি মেসেজ আসবে, যেখানে আপনার রেজিস্ট্রেশনের কৃত সকল সিমের তালিকা উল্লেখ থাকবে।

সিম রেজিস্ট্রেশন চেক অনলাইন

যেহেতু আপনি বিভিন্ন সিম ব্যবহার করছেন, তাই আপনার সিমের উপর রেজিস্ট্রেশন চেক করার কিছুটা পার্থক্য রয়েছে। যেমন আপনি যদি গ্রামীন সিম থেকে আপনার রেজিস্ট্রেশন করতে সিম কার্ড চেক করতে চান তাহলে আপনাকে মেসেজ অপশনে গিয়ে টাইপ করতে হবে info এবং পাঠিয়ে দিন 4949 নাম্বারে।

অতঃপর একটি রিপ্লাই আসবে যেখানে আপনার আইডি কার্ড দ্বারা রেজিস্ট্রেশনকৃত সকল সিমের তালিকা দেওয়া থাকবে। এছাড়া রবি, এয়ারটেল,এবং বাংলালিংক সিম  কার্ড দ্বারা কিভাবে এবং কোন কোড গুলো ব্যবহার করে সিম রেজিস্ট্রেশন করা যায় তার একটি তালিকা নিচে উল্লেখ করা হলো।

  • রবি সিমের ডায়াল কোড *16001#
  • বাংলালিংক সিমের ডায়াল কোড *16001#
  • এয়ারটেল সিমের ডায়াল কোড *16001#

আর যদি মেসেজের মাধ্যমে আপনার সিম রেজিস্ট্রেশন চেক করতে চান তাহলে নিচের প্রক্রিয়াটি দেখে নিন।

  • গ্রামীণফোন এর ক্ষেত্রে আপনার মোবাইলের মেসেজ অপশনে গিয়ে info লিখে 4949 নম্বরে পাঠিয়ে দিন। এতে একটি মেসেজ আসবে।
  • টেলিটক এর ক্ষেত্রে আপনার মোবাইলের মেসেজ অপশনে গিয়ে info লিখে 1600 নম্বরে পাঠিয়ে দিন। এতে একটি মেসেজ আসবে। যেখানে আপনার রেজিস্ট্রেশনকৃত সিমের তালিকা দেওয়া থাকবে।

যদি আপনার মোবাইল নম্বর গুলো এমন থাকে (01234567890) তাহলে আপনার ওপরে উল্লেখিত প্রক্রিয়া অবলম্বনের পর ফিরতি মেসেজে নাম্বার গুলো এমন (012*********890) দেখাবে।

NID দিয়ে কয়টি সিম রেজিস্ট্রেশন হয়েছে জানার উপায়

পাঁচ থেকে ছয় বছর পূর্ব থেকে এই বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে সিম রেজিস্ট্রেশন করা শুরু হয়েছে। এরপর থেকেই সাবধানের সাথে সকলেই রেজিস্ট্রেশন এবং ব্যবহার করে থাকে। ইতিমধ্যে এনআইডিতে কয়টি সিম রেজিস্ট্রেশন করা হয়েছে তা জানার একটি পদ্ধতি উপরে উল্লেখ করেছি।

এ পদ্ধতি সব থেকে সহজ,যে কোন ব্যক্তি এ পদ্ধতি অবলম্বন করে এনআইডি কার্ডের শেষের ৪ ডিজিট নম্বর দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করা সিম চেক করতে পারবেন। অথবা নিচে এ প্রক্রিয়াটি খুব সহজে উল্লেখ করা হলো আপনাদের জন্য।

প্রথম ধাপ:ডায়াল কোডে পৌঁছান

আবার একটি প্রক্রিয়া উল্লেখ করতে যাচ্ছি। প্রক্রিয়াটি হল আপনার ফোনের ডায়াল কোডে পৌঁছে যান। এবং ডায়াল করে লিখুন *16001# ।

দ্বিতীয় ধাপ:এনআইডি ডিজিট লিখুন

এরপরের ধাপে আপনাকে আপনার জাতীয় পরিচয় পত্রের শেষের চারটি ডিজিট উল্লেখ করে সেন্ট বাটনে ক্লিক করে দিবেন। শেষ আর কোন কাজ নেই।

তৃতীয় ধাপ:

এ ধাপে আপনাকে কোন কাজ করতে হবে না, শুধুমাত্র আপনার মোবাইলে মেসেজ অপশনে গিয়ে চেক করুন। নিচে দেওয়া ছবির মত এরকম মেসেজ আসবে। যেখানে পুরো নাম্বারের অর্ধেক গোপন নাম্বার হিসেবে থাকবে আপনার রেজিস্ট্রেশনকূত সিমের।

সিম রেজিস্ট্রেশন বাতিল করার নিয়ম

এ প্রক্রিয়া অনেক সহজ, তবে আপনাদের কাছে একটি কঠিন লাগতে পারে। আপনার অবাঞ্চিত অপ্রয়োজনীয় রেজিস্ট্রেশন পেতে সিমকে বাতিল করতে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করতে পারেন। মোট সর্বমোট 15 টি সিম আপনি রেজিস্ট্রেশন করতে পারবেন।  তবে এর থেকে সব কয়টি সিম বাতিল করতে চাইলে আপনি বাতিল করতে পারবেন। তবে উপযুক্ত কারণ আপনাকে দেখাতে হবে।

বর্তমানে এই সকল সিম ব্যবহার করে বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকান্ড করা হয়ে থাকে। তাই সাবধানে থাকতে অগ্রণী সিম গুলো বাতিল করে ফেলুন। বাতিল করার জন্য এক্ষেত্রে আপনাকে কাস্টমার কেয়ারে নিজে উপস্থিত থাকতে হবে না হয় ফোনের মাধ্যমে কাস্টমার অপারেটরের সাথে বিস্তারিত আলাপ করতে হবে।

আপনার কোন নাম্বার রেজিস্ট্রেশন থেকে বাজার করতে চান তা উল্লেখ করে আবেদন করতে হবে।  যদি আপনাকে কোন কাস্টমার কেয়ারে উপস্থিত থেকে সিম রেজিস্ট্রেশন বাতিল করতে বলা হয়। তাহলে সাহায্য করে একটি এন আইডি কার্ড বা ভোটার আইডি কার্ডের ফটোকপি নিয়ে যাবেন। সিম রেজিস্ট্রেশন বাতিল করতে আপনার কাছে এতটুকুই, বাকি কাজ সিম অপারেটর বা কাস্টমার কেয়ার করে দেবে।

শেষ কথা

বর্তমান হচ্ছে আধুনিকতার যুগ,যুগকে আধুনিকতার তাড়নায় বিভিন্নভাবে প্রতারকরা মানুষকে ফাঁসিয়ে বিপদে ফেলে দিয়ে থাকেন। তাই সতর্কতার সহিত আপনার সিম রেজিস্ট্রেশন করা উচিত। তাই NID দিয়ে কয়টি সিম রেজিস্ট্রেশন চেক করুন এই নিবন্ধে বিস্তারিত আলোচনা করেছি। আশা করছি আপনারা এই পোস্ট থেকে একটা সাবধান হবেন এবং অপ্রয়োজনীয় রেজিস্ট্রেশনকূত সিমগুলো চেক করে বাতিল করে ফেলবেন। যদি এখান থেকে উপকৃত হয়ে থাকেন, তাহলে আপনার আশেপাশে এই পোস্ট শেয়ার করে দিন। ধন্যবাদ

Price Fact
Price Fact
Articles: 77

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *