NID কার্ডের ছবি ও স্বাক্ষর পরিবর্তন করার নিয়ম

বছরের শুরুতেই নতুন ভোটারদের সকল কার্যক্রম সম্পন্ন হয়ে গিয়েছে। তবে এই ভোটার হওয়ার সকল প্রক্রিয়ায় অনেকের এনআইডি কার্ডের ছবি অসুন্দর এবং স্বাক্ষর অস্পষ্ট হয়েছে। তো এই NID কার্ডের ছবি ও স্বাক্ষর অস্পষ্ট এবং অসুন্দর হওয়ার কারণে ভবিষ্যতে বিভিন্ন রকম সমস্যায় পড়তে হয়। এরকম সমস্যা ছবি উঠানোর ক্ষেত্রে তাড়াহুড়া করার কারণে হয়ে থাকে। তবে এই সমস্যা প্রায় সবার ক্ষেত্রে লক্ষণীয় হয়। তবে এজন্য NID কার্ডের ছবি ও স্বাক্ষর পরিবর্তন করার নিয়ম সম্পর্কে জানার জন্য  অনলাইনে এসে অনুসন্ধান করে থাকেন।

বিশেষ করে ছবি অসুন্দর হওয়ার সবথেকে মূল কারণ তাড়াহুড়া করে ছবি উঠানো। এবং অনেকের বহু পূর্বে এন আইডি কার্ড করার ধরুনে ক্যামেরা কোয়ালিটি ভালো না থাকা ছবি অস্পষ্ট হয়েছিল। ইতিমধ্যে যারা এই অস্পষ্ট ছবি এবং অস্পষ্ট স্বাক্ষর পরিবর্তন করতে চাচ্ছেন তারা এখান থেকে সম্পূর্ন প্রক্রিয়া দেখে নিন। দিতে চাইলেই এই আবেদন এবং এ নিয়ম গুলো বাসা থেকে নিজে নিজেই করতে পারবেন। আজকের এই আলোচনায় খুব সহজভাবে NID কার্ডের ছবি ও স্বাক্ষর পরিবর্তন করার নিয়ম বিস্তারিত উল্লেখ করা হয়েছে। অতঃপর প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত দেখুন।

NID কার্ডের ছবি ও স্বাক্ষর পরিবর্তন করার নিয়ম

অনেকে তো লক্ষ্য করা যায় ছবি অসুন্দর এবং স্বাক্ষর অস্পষ্ট হওয়ার কারণে এনআইডি কার্ডদ্বারী ব্যক্তিকে অনেক সময় চেনা যায় না অর্থাৎ সনাক্ত করতে কষ্ট হয়। এজন্য এনআইডি কার্ডের ছবি এবং স্বাক্ষর পরিবর্তন করা অনেক গুরুত্বপূর্ণ হয়ে পড়ে।

তবে NID কার্ডের ছবি ও স্বাক্ষর পরিবর্তন করার নিয়ম কে জাতীয় পরিচয় পত্র সংশোধন বলা হয়ে থাকে। তবে এই প্রক্রিয়া অনেক সহজ, আপনি নিজে নিজেই করতে পারবেন। তবে কিভাবে করবেন এই আলোচনায় নিচে বিস্তারিত ব্যাখ্যা করা হয়েছে। 

যেভাবে NID কার্ডের ছবি ও স্বাক্ষর পরিবর্তন করবেন

আপনার ব্যক্তিগত এনআইডি কার্ডের ছবি পরিবর্তন করার জন্য আপনার এলাকার সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাচন অফিসে সরাসরি নিজে উপস্থিত থেকে জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন ফরম-২ পূরণ করে আবেদন করতে হবে।

অতঃপর সেই আবেদন ফি বাবদ (ভ্যাটসহ) ২৩০/- টাকা মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে জমা দিতে হবে। তবে এই মোবাইল ব্যাংকিং যে কোন মাধ্যম হতে পারে। অতঃপর NID কার্ডের ছবি ও স্বাক্ষর পরিবর্তন করার নিয়ম সঠিক এবং নির্ভুলভাবে একটু নিচে প্রবেশ করে জেনে নিন।

ভোটার আইডি কার্ডের ছবি ও স্বাক্ষর পরিবর্তন করার নিয়ম

এই সকল ভোটার আইডি কার্ডের ছবি ও স্বাক্ষর পরিবর্তনের আবেদন হচ্ছে “খ” ক্যাটাগরির আবেদন। এইজন্য এই  ধরণের সকল আবেদনগুলো জেলা নির্বাচন অফিসার অনুমোদন করেন। অতঃপর আপনি যখন আপনার ভোটার আইডি কার্ডের ছবি এবং স্বাক্ষর পরিবর্তন করার জন্য-

আপনার উপজেলা পরিষদে গিয়ে জাতীয় পরিচয় পত্র সংশোধন ফ্রম জমা দিবেন। এবং তার পরবর্তীতে অনুমোদিত হলে সেখানে উল্লেখিত মোবাইল নাম্বারে এসএমএস করে জানিয়ে দেওয়া হবে। এর পরবর্তীতে আপনি অনলাইন থেকে NID Card Download করতে পারবেন।

ভোটার আইডি কার্ডের অসুন্দর ছবি পরিবর্তন করার করার নিয়ম

আপনার ভোটার আইডি কার্ডের ছবি পরিবর্তন করার জন্য যে নিয়ম প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত মেনে চলতে হবে তাই এখানে উল্লেখ করা হয়েছে। তাহলে নিয়মটি দেখে নিন।

প্রথম ধাপ:১. জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন ফরম ২ পূরণ করুন

  • এই লিংকে(https://services.nidw.gov.bd/resources/forms/New_Correction_Form.pdf) প্রবেশ করে জাতীয় পরিচয় পত্র সংশোধন ফরম ডাউনলোড করে যথাযথ তথ্য দিয়ে পূরণ করুন। আপনার প্রয়োজনীয় তথ্য পূরণ করুন, এবং অপ্রয়োজনীয় ফাঁকা ঘরগুলো কলম দিয়ে কেটে দিন।

  • উপরিউক্ত ফরমে আপনার নাম, এবং আপনার এনআইডি নম্বর সঠিকভাবে পূরণ করুন। তারপর সংশোধনের বিষয় হিসেবে উপরে দেওয়া ফরমে অন্যান্য (ঝ) ১ম সাড়িতে ছবি ও স্বাক্ষর লিখুন। আর চাহিত সংশোধিত তথ্য হিসেবে ছবি ও স্বাক্ষর পরিবর্তন লিখুন। সংযুক্ত দলিলাদি হিসেবে আইডি কার্ডের ফটোকপি লিখুন।
  • এরপর এই ফর্মটির নিচের দিকে আবেদনকারীর নাম মোবাইল নাম্বার এবং ঠিকানা লিখতে হবে। এখানে যে নাম্বারটি দেওয়া হবে আবেদন অনুমোদন হলে সেই নাম্বারে এসএমএস করে জানানো হবে। 

দ্বিতীয় ধাপ:২. সংশোধন ফি পরিশোধ করুন

আপনার মূল তথ্যের অন্তর্ভুক্ত হচ্ছে ছবির সংশোধন এবং স্বাক্ষর সংশোধন। আর এই সংশোধন যাতে পরিচয়পত্র সংশোধন হিসেবে অর্থাৎ এই ক্যাটাগরিতে পড়ে। এজন্য আপনাকে একটি ফি পরিশোধ করতে হবে।

এ জন্য আপনাকে ২৩০/- টাকা সংশোধন ফি বিকাশ বা রকেটের মাধ্যমে পরিশোধ করতে হবে। এছাড়া আবেদন ফরমের সাথে আপনার উল্লেখিত ফরমের ৫ নাম্বারের ফি জমা দানের রশিদ হিসেবে বিকাশ Transaction ID লিখে দিতে পারেন।

তৃতীয় ধাপ:৩. আবেদন জমা দিন

এর পরের ধাপ হচ্ছে আপনার পুরনকৃত ফরম নিকটবর্তী উপজেলা পরিষদে গিয়ে জমা দিন। অন্য কেউ আপনার হয়ে এই ফরম জমা দিলে হবে না। এজন্য এই ফর্ম আপনাকে নিজে সেখানে উপস্থিত থেকে জমা দিতে হবে।

আবেদন ফরমের সাথে জাতীয় পরিচয়পত্রের একটি কপি সংযুক্ত করে নির্বাচন অফিসে জমা দিন। আপনার ছবি ও স্বাক্ষর পরিবর্তন করার কারণ যুক্তিযুক্ত হলে আবেদনটি গ্রহণ করা হবে। অতঃপর আবেদন গ্রহণ করার পর সেখানে উল্লেখিত মোবাইল নম্বরে একটি এসএমএস পাঠানো হবে।

এবং এই এসএমএস পাঠানোর উদ্দেশ্য নতুন স্বাক্ষর এবং ছবি তোলার জন্য একটি তারিখ সেখানে উল্লেখিত থাকবে। অতঃপর সেই তারিখ মোতাবেক উপজেলা পরিষদে গিয়ে ছবি এবং স্বাক্ষর নতুন করে দিয়ে আসুন।

চতুর্থ ধাপ:৪. সংশোধিত NID Card ডাউনলোড করুন

অতঃপর সর্বশেষ আপনার অনুমোদিত এবং সংশোধিত এন আইডি কার্ড ডাউনলোড করতে পারবেন।  তবে ফরম নির্বাচন অফিসের জমা দেওয়ার ১৫ থেকে ২০ দিন পরেই আপনি এই সংশোধিত এন আইডি কার্ড ডাউনলোড করতে পারবেন।

অর্থাৎ নতুন ছবি যুক্ত জাতীয় পরিচয় পত্র অনলাইন মাধ্যম থেকে অথবা নির্বাচন কমিশন থেকে সংগ্রহ করতে পারবেন। না হয় আপনি আপনার ভোটার আইডি কার্ডের নম্বর দিয়ে অনলাইন থেকে প্রিন্ট করে নিতে পারবেন।

জাতীয় পরিচয়পত্র (NID) এর স্বাক্ষর পরিবর্তনের পদ্ধতি ২০২৪

উপরে যে ধাপগুলো ইতিমধ্যে উল্লেখ করা হয়েছে। এ ধাপগুলো অনুসরণ করলে আপনি আপনার জাতীয় পরিচয় পত্রের ছবি এবং স্বাক্ষর দুটোই পরিবর্তন করতে পারবেন। অর্থাৎ উপরে যে ফরম উল্লেখিত রয়েছে। সে ফরম পূরণের ধারায় আপনি আপনার স্বাক্ষর পরিবর্তন করতে পারবেন।

একই ভাবে ২৩০ টাকা ফি প্রদান করতে হবে। এবং একইভাবে স্বাক্ষর পরিবর্তনের পদ্ধতি হিসেবে উপরে উল্লেখিত সকল ধাপগুলো প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত মানতে হবে। আশা করা যায় আপনার জাতীয় পরিচয় পত্র এই পোস্ট থেকে বিস্তারিত তথ্য জেনে সংশোধন করতে পারবেন। এবং আরও আশা করছি NID কার্ডের ছবি ও স্বাক্ষর পরিবর্তন করার নিয়ম এখান থেকে সহজ ভাবে জানতে পেরেছেন।

শেষ কথা

এখানে উল্লেখিত NID কার্ডের ছবি ও স্বাক্ষর পরিবর্তন করার নিয়ম খুব সহজভাবে উপস্থাপন করার চেষ্টা করেছি। আশা করা যায় যে কেউ এখান থেকে নিয়মিত ধাপে ধাপে পূরণ করে এন আইডি সংশোধন করতে পারবেন। যদি এই পোস্ট থেকে আপনারা উপকৃত হয়ে থাকেন,তাহলে আপনার আশেপাশে এ সকল সমস্যা পড়ে থাকা ব্যক্তিদের কে শেয়ার করে জানিয়ে দিন। যাতে তারা খুব সহজেই তাদের ভোটার আইডি কার্ডের ছবি এবং স্বাক্ষর সংশোধন করতে পারে। ধন্যবাদ

Price Fact
Price Fact
Articles: 77

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *