মোবাইল নাম্বার দিয়ে জাতীয় পরিচয় পত্র বের করার নিয়ম

বর্তমান সময়ে এখন ভোটার আইডি কার্ড এর গুরুত্ব অনেক। যেকোনো কাজ করতে হলে প্রথমে আমাদের জাতীয় পরিচয় পত্র দরকার পড়ে। কোন চাকরির ক্ষেত্রে এবং কি জরুরি কোন কাজে তারপর ব্যাংকের একাউন্ট করতে জরির কোন ভিসা করতে সব ক্ষেত্রেই আমাদের জাতীয় পরিচয় পত্রের ফটোকপি দেওয়ার প্রয়োজন পড়ে। সবারই প্রাপ্তবয়স্ক হলে জাতীয় পরিচয় পত্র করা দরকার। অনেকেরই জাতীয় পরিচয় পত্র নতুন করে করছে কিন্তু এখনো বের করতে পারে নাই। তারা অনলাইনে খোঁজাখুঁজি করে থাকে কিভাবে মোবাইল নাম্বার দিয়ে জাতীয় পরিচয় পত্র বের করা যায়। 

এখন আপনাদেরকে এই পোষ্টের মাধ্যমে জাতীয় পরিচয় পত্রের নাম্বার বের করার নতুন নিয়ম দেখাবো। আপনি যদি ভোটার হয়ে থাকেন তাহলে অবশ্যই আপনার জাতীয় পরিচয় পত্র দরকার হবে। এবং বাংলাদেশের একজন নাগরিক হতে হলে আপনাকে অবশ্যই জাতীয় পরিচয় পত্র বানাতে হবে। সরকারি সেবার মাধ্যমে আমরা অনেকেই নতুন জাতীয় পরিচয় পত্র আবেদন করে থাকি। অনেক সময় আমাদের কোন ভুলের কারণে জাতীয় পরিচয় পত্র হারিয়ে যায়। 

আপনাদেরকে এই পোষ্টের মাধ্যমে মোবাইল নাম্বার দিয়ে জাতীয় পরিচয় পত্র বের করার নিয়ম শিখাবো। এবং ফরম নাম্বার দিয়ে আইডি কার্ড চেক করা, ভোটার নাম্বার দিয়ে আইডি কার্ড চেক, নাম্বার দিয়ে পরিচয় বের করার অ্যাপ, স্লিপ নাম্বার দিয়ে ভোটার আইডি কার্ড, তারপর জাতীয় পরিচয় পত্র অনুসন্ধান, এবং জাতীয় পরিচয় পত্র কিভাবে ডাউনলোড করবেন সে সমস্ত তথ্য আপনাদেরকে এই পোষ্টের মাধ্যমে জানাবো। জাতীয় পরিচয় পত্র সম্পর্কে বিভিন্ন তথ্য জানতে হলে আমাদের পোষ্ট মনোযোগ সহকারে পড়তে থাকুন।

মোবাইল নাম্বার দিয়ে জাতীয় পরিচয় পত্র বের করা

অনেক সময় আমরা নির্বাচন কমিশন ওয়েবসাইটের মাধ্যমে জাতীয় পরিচয় পত্র করে থাকি। কিন্তু জাতীয় পরিচয় পত্র করার পর কিভাবে অনলাইন থেকে ডাউনলোড করতে হবে সে পদ্ধতি জানেনা। আবার অনেকেই মোবাইল নাম্বার দিয়ে জাতীয় পরিচয় পত্র বের করার পদ্ধতি জানতে চায়। কারণ জাতীয় পরিচয় পত্র করার সময় আমাদের একটি নিজস্ব মোবাইল নাম্বার ব্যবহার করতে হয়। তখন তারা এই মোবাইল নাম্বারের মাধ্যমে গুগলে সার্চ করে জাতীয় পরিচয় পত্র টি বের করতে চায়। আপনি যদি শুধু মোবাইল নাম্বারটা দিয়ে এনআইডি কার্ড বের করতে চান তাহলে কখনোই সম্ভব না।

কারণ মোবাইল নাম্বার দিয়ে সার্চ করে কখনো আপনার এন আইডি কার্ড বের করতে পারবেন না। আবার অনেকেই জানতে চায় তার মোবাইল নাম্বারটি কোন আইডি কার্ড দিয়ে করা। আপনি যদি এটা জানতে চান তাহলে অবশ্যই এটা বের করা সম্ভব। আপনি যে সিম ব্যবহার করেন সেই সিমের কাস্টমার কেয়ারে গেলেই সাথে সাথে আপনার কোন আইডি কার্ড ব্যবহার করে এই সিমটি ক্রয় করা হয়েছিল তারা সেই আইডি কার্ডের নাম ও নাম্বার বলে দিতে পারবে। 

কিন্তু বিকল্প একটি পদ্ধতিতে মোবাইল নাম্বার ব্যবহার করে এনআইডি কার্ডের তথ্য পাওয়া যায়। সে ক্ষেত্রে আপনাকে প্রথমে আপনার মোবাইল নাম্বার দিয়ে নির্বাচন কমিশন অফিসে এসএমএস পাঠাতে হবে। এবং তাদের নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে তারা আপনাকে আপনার এটা এনআইডি কার্ডের তথ্য এবং নাম্বার এসএমএসের মাধ্যমে জানিয়ে দিবে।

ফরম নাম্বার দিয়ে আইডি কার্ড চেক

নতুন ভোটার হওয়ার সময় আমাদেরকে একটি সরকারি নির্বাচন কমিশন অফিস থেকে দেও একটি ফরম পূরণ করতে হয়। সেই ফর্মে সঠিক তথ্য প্রদান করতে হয়। সেই ফরম অনুযায়ী আমাদের জাতীয় পরিচয় পত্র অথবা এন আই ডি কার্ড তৈরি করে। এনআইডি কার্ড তৈরি করা যখন কমপ্লিট হয়ে যায় তখন আপনি অনলাইনের মাধ্যমে ফরম নাম্বার দিয়েই আপনার এনআইডি কার্ড চেক করতে পারবেন এবং কি ডাউনলোড করতে পারবেন। সে ক্ষেত্রে আপনাকে কয়েকটি পদ্ধতিতে ফরম নাম্বার দিয়ে এনআইডি কার্ড চেক করতে হবে।

তাহলে জেনে নিন ফার্ম নাম্বার দিয়ে আইডি কার্ড চেক করার নিয়ম। প্রথমে আপনাকে গুগল ক্রোমে প্রবেশ করে (services.nidw.gov.bd) এই ওয়েবসাইটে ক্লিক করতে হবে। তারপর আপনার একাউন্ট রেজিষ্টারে গিয়ে খালিঘরে আপনার প্রথমে ফরম নাম্বার দিতে হবে এবং তারপরেরটা জন্ম সাল তারিখ এবং মাস ব্যবহার করতে হবে। এবং শেষে তাদের গোপন ক্যাপচা দিবে একটি ওই ক্যাপচা পূরণ করে সাবমিট বাটন ক্লিক করলেই আপনার এন আই ডি কার্ড এর সমস্ত তথ্য পেয়ে যাবেন।

ভোটার নাম্বার দিয়ে আইডি কার্ড চেক

আপনি সহজেই ভোটার নাম্বার দিয়ে আইডি কার্ড চেক করতে পারবেন। অনেক সময় আমাদের আইডি কার্ড হারিয়ে যায়। অথবা যারা নতুন ভোটার হয়ে থাকেন তাদের আইডি কার্ড এখনো আসে নাই তারা অনলাইনের মাধ্যমে তাদের এনআইডি কার্ড চেক করতে চায়। আপনি আমাদের এই পোষ্টের মাধ্যমে ভোটার নাম্বার দিয়ে আইডি কার্ড চেক করতে পারবে। আপনি চাইলে মোবাইল দিয়েও এই আইডি কার্ড চেক করতে পারবেন।

প্রথমে আপনাকে ডাটা কানেকশন অন করে গুগল ক্রোমে ঢুকতে হবে। তারপর নির্বাচন কমিশন এর নির্দেশ ওয়েবসাইট (https://services.nidw.gov.bd/) এই সাইটে আপনাকে প্রবেশ করতে হবে। এবং আপনাকে প্রথমে ভোটার তালিকা থেকে ভোটার নাম্বার সংগ্রহ করতে হবে। তারপর এই সাইটে প্রবেশ করে ভোটার নাম্বার এবং দ্বিতীয়তঃ আপনার সঠিক জন্ম সাল, তারিখ, মাস প্রদান করতে হবে। তারপর তাদের গোপন ক্যাপচা পূরণ করে সাবমিট করে দিলে আপনার এনআইডি কার্ডের তথ্য পেয়ে যাবেন।

নাম্বার দিয়ে পরিচয় বের করা অ্যাপ

অনেক সময় আমাদের নাম্বার দিয়ে পরিচয় বের করার দরকার পড়ে। কারণ কিছু সময়ে আমাদের সাথে অনেক মানুষ আছে নাম্বার দিয়ে প্রচারিত করে। তখন আমরা খুজে থাকি কিভাবে সেই নাম্বার দিয়ে তার পরিচয় বের করা যায়। বর্তমান সময়ে আপনি অ্যাপের মাধ্যমে নাম্বার দিয়ে পরিচয় বের করতে পারবেন। আপনি যদি সেই অ্যাপের নাম খুঁজে থাকেন প্রথমে আপনাকে প্লে স্টোরে গিয়ে মোবাইল নাম্বার লোকেশন ট্র্যাকার লিখে সার্চ করলেই আপনি অ্যাপ পেয়ে যাবেন। সেই অ্যাপের মাধ্যমে আপনি নাম্বার দিয়ে সার্চ করলে তার পরিচয় বের করতে পারবেন।

স্লিপ নাম্বার দিয়ে ভোটার আইডি কার্ড বের করার নিয়ম

আমরা যখন কোন ইউনিয়ন অফিসের মাধ্যমে অথবা অনলাইনের মাধ্যমে নতুন ভোটার হয়ে থাকি তখন ভোটার হওয়ার সম্পূর্ণ কাজ শেষ হওয়ার পর আমাদেরকে একটি স্লিপ দেয়। আমাদেরকে সেই স্লিপের মাধ্যমে পরবর্তীতে ভোটার আইডি কার্ড সংগ্রহ করতে হয়। আপনি চাইলে সরকারিভাবে ভোটার আইডি কার্ড দেওয়ার আগে আপনি অনলাইন থেকে স্লিপ নাম্বার দিয়ে ভোটার আইডি কার্ড বের করতে পারবে। এজন্য আপনাকে কিছু নিয়ম মেনে স্লিপ নাম্বার দিয়ে ভোটার আইডি কার্ড বের করতে হবে। প্রথমে আপনাকে গুগলে ঢুকে এনআইডি কার্ড সার্ভিসেস লিখে সার্চ করতে হবে। তারপর তাদের ওয়েবসাইটে ঢুকে বাংলাদেশ এনআইডি অ্যাপ্লিকেশন সিস্টেম এই ওয়েবসাইটের মাধ্যমে আপনার স্লিপে একটি নাম্বার রয়েছে সে নাম্বারটি দিতে হবে এবং আপনার জন্ম তারিখ মাস এবং জন্ম সাল সঠিকভাবে দিতে হবে। তারপর তাদেরকে ক্যাপচাটি পূরণ করে সাবমিট করে দিলেই সাথে সাথে আপনার ভোটার আইডি কার্ডের সম্পূর্ণ তথ্য চলে আসবে।

Nid নাম্বার দিয়ে আইডি কার্ড বের করা

আপনি আপনার নিজস্ব Nid নাম্বার দিয়ে আইডি কার্ড বের করতে পারবেন। অনেক সময় আমাদের এনআইডি কার্ড হারিয়ে যায় তখন আমাদের কাছে শুধু নাম্বারটা থাকে। তখন আপনি চাইলে না এনআইডি নাম্বার দিয়ে আপনার আরেকটি আইডি কার্ড বের করতে পারবেন। সে ক্ষেত্রে আপনার কয়েকটি স্টেপ বাই স্টেপ কিছু নিয়ম মানতে হবে। আপনি আমাদের লেখাটির মাধ্যমে নিজেই মোবাইল দিয়ে এনআইডি নাম্বার দিয়ে আইডি কার্ড বের করতে পারবেন। চলুন তাহলে দেখে নিন এনআইডি নাম্বার দিয়ে আইডি কার্ড বের করার নিয়মগুলো 

  1. প্রথমে আপনাকে ডাটা অন কানেকশন অন করে গুগলে প্রবেশ করতে হবে। 
  2. তারপর এনআইডি কার্ড সার্ভিস লিখে সার্চ করতে হবে। 
  3. প্রথমেই আপনি আপনি তাদের নিজস্ব ওয়েবসাইট পেয়ে যাবেন। 
  4. সে সাইটের নাম হল (NID services) প্রবেশ করে প্রথমে Nid নাম্বার দিতে হবে। তারপর সঠিক জন্ম নিবন্ধন অনুযায়ী জন্ম সাল তারিখ দিতে হবে। 
  5.  সর্বশেষ আপনি তাদের ফোন ক্যাপচা গুলো দেখে সঠিকভাবে পূরণ করে সাবমিট করতে হবে। 
  6. এবং লাস্ট আপনাকে এনআইডি ওয়ালেট প্লে স্টোর থেকে ইন্সটল করে ছেয়াপের মাধ্যমে আপনার ফেস ভেরিফিকেশন করতে হবে। 
  7. তারপর আপনার মোবাইলের নাম্বারে একটি ভেরিফিকেশন কোড আসবে সেই কোড দিয়ে সাবমিট করলেই আপনার এনআইডি কার্ড নাম্বার দিয়ে আইডি কার্ড পেয়ে যাবেন।

জাতীয় পরিচয় পত্র অনুসন্ধান

আপনি যদি জাতীয় পরিচয় পত্র অনুসন্ধান করতে চান তাহলে আপনাকে অবশ্যই অনলাইনের মাধ্যমে তাদের নিজস্ব ওয়েবসাইটে ঢুকে অনুসন্ধান করতে হবে। সরকারি নির্বাচন কমিশন অফিসের একটি ওয়েবসাইট রয়েছে এই ওয়েবসাইটের মাধ্যমে আপনার জাতীয় পরিচয় দান করতে পারবেন। সেক্ষেত্রে আপনার এনআইডি কার্ড নাম্বার জন্ম নিবন্ধন অনুযায়ী জন্ম ডেট এবং তাদের দেওয়া ক্যাপচা পূরণ করলেই আপনি জাতীয় পরিচয় পত্র অনুসন্ধান করতে পারবেন। প্রথমে আপনি গুগল ক্রমে (Bangladesh Nid Application System) ওয়েবসাইটে ঢুকে আপনার জাতীয় পরিচয় পত্র অনুসন্ধান করতে পারবেন।

জাতীয় পরিচয় পত্র ডাউনলোড

এখন আপনাদেরকে জাতীয় পরিচয় পত্র অনলাইনে কিভাবে ডাউনলোড করবেন সে সম্পর্কে জানাবো। অনেক মানুষ আছে তারা নতুন ভোটার হওয়ার পর তারা অনলাইনের মাধ্যমে জাতীয় পরিচয় পত্র ডাউনলোড করতে চায়। আপনি চাইলে আপনার নিজের স্মার্ট ফোন দিয়েই জাতীয় পরিচয় পত্র ডাউনলোড করতে পারবেন। প্রথমে আপনার গুগল ক্রোমে ঢুকে বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন অফিসের ওয়েবসাইটে ঢুকতে হবে।  nid services এই ওয়েবসাইটে ঢুকে আপনার এনআইডি নাম্বার জন্ম সাল এবং বিভিন্ন তথ্য পূরণ করে ক্যাপচা পূরণ করে সাবমিট করার পর। আপনার মোবাইলে একটি ভেরিফিকেশন মেসেজ আসবে তারপর আপনার মোবাইলে একটি এনআইডি ওয়ালেট সফটওয়্যার ইনস্টল করে আপনার ফেস ভেরিফিকেশন করতে হবে। সম্পূর্ণ তথ্য সঠিক থাকলেই আমি সাথে সাথেই অনলাইনে মাধ্যমে আপনার জাতীয় পরিচয় পত্র ডাউনলোড করতে পারবেন।

আইডি কার্ড দিয়ে সিম নাম্বার বের করা

অনেক সময় আমাদের কোন এনআইডি কার্ড দিয়ে সিম কেনা হয় সে সম্পর্কে মনে থাকে না। কিছু সময় আমাদের সিম হারিয়ে গেলে অথবা নষ্ট হয়ে গেলে তখন আমাদের সেই আগের এনআইডি কার্ডের তথ্য দিয়ে নতুন করে সিম তুলতে হয়। আমাদের অনেক প্রয়োজনীয় কাজে আইডি কার্ড দিয়ে সিম নাম্বার বের করার প্রয়োজন পড়ে। আপনি যদি নির্বাচন কমিশন অফিসের ওয়েবসাইটে ঢুকে আপনার আইডি নাম্বার এবং বিভিন্ন তথ্য পূরণ করে সাবমিট করার পর আপনার যে নাম্বার দেওয়া ছিল এই নাম্বারের ভেরিফিকেশন কোড আসবে। সেখান থেকে আপনি ফাস্ট নাম্বার এবং লাস্টের দুইটা ডিজিট দেখতে পারবেন।

বিকল্প উপায়ে জাতীয় পরিচয় পত্র নাম্বার বের করুন

অনেক সময় আমাদের অনলাইনের মাধ্যমে সঠিক তথ্য না জানার কারণে জাতীয় পরিচয় পত্র নাম্বার বের করতে পারেন না। আপনারা কিভাবে বিকল্প পদ্ধতিতে জাতীয় পরিচয় পত্র নাম্বার বের করবেন সেই সমস্ত তথ্য খুঁজে থাকে। আপনারা চাইলে মোবাইলের সিমের মাধ্যমে নির্বাচন কমিশন অফিসে মেসেজ দিয়ে আপনার জাতীয় পরিচয় পত্র নাম্বার বের করতে পারবেন। সে ক্ষেত্রে আপনাকে সঠিকভাবে মেসেজ প্রদান করতে হবে। দেখে নিন সঠিকভাবে মেসেজ দেওয়ার নিয়ম। 

  • প্রথমে আপনাকে SC (space)F (space) আপনার নিবন্ধন স্লিপের আজ সংখ্যার নাম্বার (space) D (space) ৪ সংখ্যার জন্ম সাল (-) দুই সংখ্যার জন্ম তারিখ লিখে 105 নাম্বারে সেন্ড করতে হবে। 
  • উদাহরণঃ SC F 11223344 D 2002-01 Send 105 Number. 
  • এভাবে আপনি সঠিকভাবে মেসেজ পাঠালে ২৪ থেকে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে রিপ্লাই এসএমএস এ আপনার ভোটার আইডি কার্ডের নাম্বার জানিয়ে দিবে।

শেষ কথা

বাংলাদেশের প্রতিটি নাগরিকের জন্য জাতীয় পরিচয় পত্র একটি গুরুত্বপূর্ণ জিনিস। অনেক মানুষ আছে তারা জাতীয় পরিচয় পত্র অনলাইন থেকে কিভাবে বের করতে হবে সে তথ্য জানেনা। এ পোষ্টের মাধ্যমে আমরা জাতীয় পরিচয় পত্র বের করার বিভিন্ন নিয়ম সম্পর্কে জানিয়েছি। ইতিমধ্যেই আপনি আমাদের পোস্টটি পড়েছেন এবং মোবাইল নাম্বার দিয়ে জাতীয় পরিচয় পত্র বের করার নিয়ম জানতে পেরেছেন। আশা করি আপনি আমাদের সম্পূর্ণ পোস্ট পড়েছেন এবং আপনার ভালো লেগেছে। আমাদের এই পোস্ট পড়ে উপকৃত হয়ে থাকলে তাহলে অবশ্যই এই পোস্টটি শেয়ার করে সবাইকে দেখার সুযোগ করে দিন। ধন্যবাদ

Price Fact
Price Fact
Articles: 77

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *