হারানো ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড করার নিয়ম ২০২৪

অনেক সময় আমাদের ভোটার আইডি কার্ড নিয়ে চলাফেরা করার সময় হঠাৎ করে হারিয়ে যায়। আমাদের কোন কাজ করার ক্ষেত্রে সর্বপ্রথম ভোটার আইডি কার্ডের প্রয়োজন পড়ে। বিভিন্ন চাকরির ক্ষেত্রে গেলেও সবার আগে ভোটার আইডি কার্ড এর ফটোকপি জমা দেওয়া দরকার পড়ে। হঠাৎ করে আমাদের ভুলের কারণে ভোটার আইডি কার্ড হারিয়ে যায়। আজকে আপনাদেরকে ভোটার আইডি কার্ড হারিয়ে গেলে অনলাইনের মাধ্যমে আবার কিভাবে ফেরৎ পাবেন সে সম্পর্কে আলোচনা করবো। আপনি আমাদের এই সম্পূর্ণ পোস্টটি পড়ে হারানো ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড করার নিয়ম জানতে পারবেন।

আপনার কি ভোটার আইডি কার্ড হারিয়ে গেছে? ভোটার আইডি কার্ড আবার কিভাবে ডাউনলোড করবেন, কোথায় থেকে করবেন, সে বিষয় নিয়ে অনেক চিন্তিত? কোন টেনশন নাই আপনি সহজেই অনলাইনের মাধ্যমে হারানো ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড করতে পারবেন। আমরা আজকে এই পোষ্টের মাধ্যমে হারানো ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড করার নিয়ম ও ভোটার কার্ড হারিয়ে গেলে কি করনীয় কিভাবে থানায় জিডি করতে হয় এবং ভোটার আইডি কার্ড কিভাবে রিইস্যু করতে হয়। সে সমস্ত তথ্য আমাদের এই পোষ্টের মাধ্যমে জানানো হবে। হারানো ভোটার আইডি কার্ড অনলাইনের মাধ্যমে ডাউনলোড করতে চাইলে সম্পূর্ণ পোস্ট পড়তে থাকুন।

হারানো ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড করার নিয়ম

আপনার যদি কোন এক কারনে ভোটার আইডি কার্ড হারিয়ে যায় তাহলে আপনি অনলাইনের মাধ্যমে ডাউনলোড করতে চাইলে প্রথমে আপনাকে থানায় জিডি করতে হবে। এবং তারপর অনলাইনের মাধ্যমে জাতীয় নির্বাচন কমিশন অফিস এর ওয়েবসাইটে ঢুকে হারানো ভোটার আইডি কার্ডের জন্য প্রয়োজনীয় তথ্যগুলো দিয়ে আবেদন করতে হবে। তাহলে আপনি সবকিছু ঠিকঠাক থাকলেই আপনি হারানো ভোটার আইডি কার্ড আবার নতুন করে ডাউনলোড করতে পারবেন। নিচে আপনাদেরকে বুঝার সুবিধার্থে ধাপ অনুযায়ী নিয়ম ও ছবি সহ করে দেয়া হয়েছে। এবং থানায় কিভাবে জিডি লিখতে হয় সে সম্পর্কেও জানানো হবে। নিচের দেওয়া লেখাগুলো পড়ে সমস্ত তথ্য জেনে নিন।

ভোটার কার্ড হারিয়ে গেলে করণীয়

আপনার যদি ভোটার আইডি কার্ড হারিয়ে যায় তাহলে প্রথমে আপনাকে থানায় জিডি করতে হবে। থানায় জিডি করতে হলে আপনাকে কিছু তথ্য সংগ্রহ করে রাখতে হবে। তথ্যগুলো আপনাকে অনলাইনের মাধ্যমে ভোটার আইডি কার্ড রিইস্যু করার সময় প্রমাণস্বরূপ আপনাকে জিডির কাগজপত্র স্ক্যান কপি করে আপলোড করতে হবে। এবং সরকারি ফি অনুযায়ী আপনাকে ফি প্রদান করতে হবে। আপনার যদি এই ভোটার আইডি কার্ড হারিয়ে যাওয়ার জন্য থানায় জিডি করেন তাহলে অবশ্যই আপনাকে এই চারটি তথ্য সংগ্রহ করে রাখতে হবে। 

  • জিডি নাম্বার। 
  • জিডি গ্রহণকারী পুলিশ কর্মকর্তার নাম। 
  • পুলিশ কর্মকর্তার পদবী। 
  • জেডির কপিতে থানার ছিল স্বাক্ষর। 
  • জিডি করার তারিখ।

হারানো ভোটার আইডির জিডি লেখার নিয়ম

অনেকেই আছে ভোটার আইডি কার্ড হারিয়ে গেছে কিন্তু থানায় কিভাবে জেডি করার দরখাস্ত লিখতে হবে সে সম্পর্কে কোন ধারণা নেই। এখন আপনাদেরকে সাধারণ ডায়েরিতে জিডি করার নিয়ম এবং কিভাবে দরখাস্ত লিখতে হয় সেগুলো জেনে নিন।

তারিখঃ 

বরাবর, 

অফিসার ইনচার্জ

আপনি যে থানায় জিডি করবেন সেই থানার নাম

থানার ঠিকানাঃ

বিষয়ঃ সাধারণ ডায়রির জন্য আবেদন। 

জনাব, 

বিনীত নিবেদন এই যে, ভোটার আইডি কার্ড অনুযায়ী এখানে আপনার নাম, আপনার পিতার অথবা স্বামীর নাম, আপনার সম্পূর্ণ ঠিকানা দিতে হবে। গ্রাম, ডাকঘর, উপজেলা নাম, জেলার নাম, তারপর আপনার ভোটার আইডি কার্ড কোথায় এবং কিভাবে হারিয়ে গিয়েছে তারিখ ও সময় অনুযায়ী সঠিক তথ্য লিখতে হবে। এবং আপনার ভোটার আইডি কার্ডের নাম্বার ছিল সেই নাম্বার লিখতে হবে। এবং অনেক জায়গায় খোঁজাখুঁজি করার পরেও ভোটার আইডি কার্ড পাচ্ছেন না এগুলো লিখবেন।

অতএব, উপরিক্ত বিষয় বিবেচনা করে আমাকে সাধারণ ডায়েরিভুক্ত করতে আপনার সু -মর্জি হয়। 

বিনীত নিবেদক 

নাম 

ঠিকানা 

মোবাইল নাম্বার 

আপনার স্বাক্ষর

ভোটার আইডি কার্ড রিইস্যু অনলাইন

আপনার যদি ভোটার আইডি কার্ড হারিয়ে যায় তাহলে আপনাকে অবশ্যই প্রমাণপত্র সহ অনলাইনের মাধ্যমে আইডি কার্ড রিইস্যু করতে হবে। আপনার ভোটার আইডি কার্ড ইউজ করতে চান তাহলে আপনাকে প্রথমে গুগল ক্রোমে ঢুকতে হবে। আপনি এনআইডি কার্ড রিইস্যু লিখে সার্চ করলেই কমিশন অফিসের ওয়েবসাইট পেয়ে যাবেন। তাদের ওয়েবসাইটের নাম হলো (https://services.nidw.gov.bd/) এই ওয়েবসাইটে আপনাকে প্রবেশ করতে হবে। তারপর আপনাকে ধাপে ধাপে এনআইডি কার্ড একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন, ওয়েবসাইট ভিজিট, জন্ম তারিখ, ঠিকানা যাচাই, মোবাইল নাম্বার ভেরিফিকেশন, ফেস ভেরিফিকেশন এ সমস্ত তথ্য আপনাকে প্রদান করতে হবে। কিভাবে সমস্ত তথ্য প্রদান করবেন আমাদের এ নিচের লেখাগুলো দেখলে নিয়ম ও ছবিসহ জানতে পারবেন।

ধাপ-১ NID একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন

প্রথমে আপনাকে নির্বাচন কমিশন অফিসের ওয়েবসাইটে ঢুকে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। (https://services.nidw.gov.bd) আপনি প্রথমে এই লিংকে প্রবেশ করে রেজিস্ট্রেশন করে নিবেন।

ধাপ-২ ভোটার তথ্য প্রদান করুন

আপনি ধাপ সম্পূর্ণ করলে আপনাকে দ্বিতীয় ধাপে ভোটার নাম্বার তথ্য দিয়ে পূরণ করতে হবে। প্রথমে আপনাকে আপনার ভোটার আইডি কার্ডের নাম্বার দিতে হবে। এবং দ্বিতীয় নাম্বারে আপনার সঠিক জন্ম তারিখ ব্যবহার করতে হবে। এবং তৃতীয় নাম্বারে তাদের দেওয়া একটি গোপন ক্যাপচা থাকে সঠিক সঠিকভাবে পূরণ করে সাবমিট বাটনে ক্লিক করলেই আপনার সামনে পরের ধাপ চলে আসবে। চলুন দ্বিতীয় ধাপের পিকচারটি দেখে নেওয়া যাক।

ধাপ-৩ আইডি কার্ডের ঠিকানা যাচাই

ফরম পূরণ করার সময় যে তথ্য দিয়েছিলেন ঐ তথ্য অনুযায়ী আপনাকে স্থায়ী ঠিকানা এবং বর্তমান ঠিকানা প্রদান করতে হবে। আপনার স্থায়ী ঠিকানা অনুযায়ী আপনার বিভাগ, জেলা ও উপজেলা এগুলো ব্যবহার করে তারপর বর্তমান ঠিকানা সঠিকভাবে খালিঘর পূরণ করলে আপনাকে পরবর্তী বাটনে ক্লিক করতে হবে নিচে আপনাদেরকে বুঝার সুবিধার্থে ছবিসহ করে প্রদান করে দিয়েছি।

ধাপ-৪ মোবাইল নাম্বার ভেরিফিকেশন

সর্বশেষ আপনাকে মোবাইল নাম্বার ভেরিফিকেশন করতে হবে। আপনি যে এতক্ষণ ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড করার জন্য বিভিন্ন তথ্য দিলেন সেই তথ্য অনুযায়ী আপনি যে ফর্মে মোবাইল নাম্বার ব্যবহার করেছেন সেই মোবাইল নাম্বারটির মধ্যে আপনাকে একটি ভেরিফিকেশন কোড দিবে। আপনাকে তারপর সেই ভেরিফিকেশন এর সংখ্যাগুলো ব্যবহার করতে হবে। তাহলে আপনার রেজিস্ট্রেশন এর কাজ কমপ্লিট হয়ে যাবে। আপনি চাইলে আপনার সচল মোবাইল নাম্বার ও ব্যবহার করতে পারবেন। দেখুন কোথায় মোবাইল নাম্বার দিতে হয়।

ফেস ভেরিফিকেশন করতে NID Wallet

সর্বশেষ রেজিস্ট্রেশন করা শেষ হলে আপনাকে তারপর ফেস ভেরিফিকেশন করতে হবে। মোবাইল নাম্বারে ভেরিফিকেশন করা শেষ হলে তারপরের স্টেপে আপনাকে ফেস ভেরিফিকেশন করতে বলবে। সেক্ষেত্রে ফেস ভেরিভিশন করতে হলে আপনাকে প্রথমে প্লে স্টোর থেকে এনআইডি ওয়ালেট নামে একটি সফটওয়্যার ইনস্টল করতে হবে। অবশ্যই আপনার ফেসের কানসহ ধাপে ধাপে স্ক্যান করতে হবে। তাহলে দেখে নিন সেই সফটওয়্যারটি কেমন দেখতে এবং কিভাবে ফেস ভেরিফিকেশন করতে হয়।

ভোটার আইডি কার্ড রিইস্যু আবেদন করুন

এখন আপনাকে ভোটার আইডি রিইস্যু জন্য আবেদন করতে হবে। উপরের ধাপগুলো পূরণ করলে আপনার ভোটার আইডি কার্ডের জন্য রেজিস্ট্রেশন কমপ্লিট হয়ে যাবে। এখন আপনাকে হারানো ভোটার আইডি কার্ড রিইস্যু করার জন্য আবেদন করতে হবে। প্রথমে আপনাকে আবেদন করার সেই প্রথম ড্যাশবোর্ডে যেতে হবে। তাহলে এখন নিচের লেখাগুলোর মাধ্যমে ভোটার আইডি কার্ডের রিইস্যু আবেদনের নিয়ম ও ছবিসহ দেখে নিন।

রিইস্যু ফরম পুরন করুন

তারপর আপনাকে রিইস্যু ফরম পূরণ করতে হবে। এবং প্রথম পেজ থেকে আপনাকে ইডিট অপশনে গিয়ে সমস্ত তথ্য নতুনভাবে প্রদান করতে হবে। সে ক্ষেত্রে আপনাকে তাদের দেওয়া ড্যাশবোর্ডগুলো আপনাকে পূরণ করতে হবে। আপনি রিইস্যু ফরম পূরণ করার সময় চারটি ধাপ পাবেন। এই ৪ ধাপ আপনাকে সঠিকভাবে পূরণ করে নিশ্চিত বাটনে ক্লিক করলে সব কাজ শেষ হয়ে যাবে। নিচে লেখাগুলো পড়লে চারটে ধাপ পর্যন্ত সমস্ত তথ্য দেখে নিন।

ভোটার আইডি কার্ড রিইস্যু ফি পেমেন্ট

এরপর আপনাকে নির্দিষ্ট একটি ফি বিকাশের মাধ্যমে পেমেন্ট করতে হবে। অনেকে আছেন কিভাবে ভোটার আইডি কার্ড রিইস্যু ফি পেমেন্ট করতে হয় সে সম্পর্কে জানেন না। আপনি ট্রানজেকশন অপশনে গিয়ে আপনার নিজস্ব বিকাশের মাধ্যমে ফি পেমেন্ট করতে পারবেন।

ডকুমেন্টস আপলোড করুন

আপনাকে এখন প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা দিতে হবে। বিকাশে টাকা পেমেন্ট করার পর আপনাকে ডকুমেন্টস আপলোড করার ধাপে নিয়ে যাবে। এখন আপনাকে আইডি কার্ড রিইস্যু করার প্রমাণপত্র আপলোড করতে হবে। আপনি যদি সঠিক ডকুমেন্টস আপলোড করতে পারেন। তাহলে কিছুদিনের মধ্যেই আপনার এনআইডি কার্ড আবেদন রিইস্যু কমপ্লিট হয়ে যাবে।

ভোটার আইডি কার্ড আবেদন নিশ্চিত করুন

আপনাকে এখন যে তথ্যগুলো আপডেট করেছেন সে তথ্যগুলো আপডেট করার পর নিশ্চিত করতে হবে। কারণ আপনি যদি নিশ্চিত না করেন তাহলে নির্বাচন কমিশন অফিস আপনার ডকুমেন্টস গুলো জমা হবে না। এজন্য অবশ্যই আপনাকে থানায় জিডি করে কাগজপত্রগুলো আপলোড করার পর আপনাকে নিশ্চিত করতে হবে।

হারানো ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড করুন

সব ডকুমেন্টস জমা দেওয়া কমপ্লিট হয়ে গেলে তখন আপনাকে নতুন করে ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড করতে হবে। আপনি ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড করলে আপনার কাজ শেষ হয়ে যাবে।

পুরাতন ভোটার আইডি কার্ড চেক

আপনি যদি আপনার পুরাতন ভোটার আইডি কার্ড চেক করতে চান তাহলে প্রথমে আপনাকে গুগোল ক্রমে নির্বাচন কমিশন অফিসের ওয়েবসাইটে ঢুকতে হবে। গুগলে প্রবেশ করে (Nid services) লিখে সার্চ করতে হবে। তারপরে আপনার পুরাতন এন আইডি কার্ডের নাম্বার  জন্ম তারিখ এবং গোপন কেপচা দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করার পর আপনাকে রিইস্যু অপশনে যেতে হবে। তারপরে আপনি আপনার পুরাতন ভোটার আইডি কার্ড সবগুলো নিয়ম মেনে খালিঘর গুলো পূরণ করলেই চেক করতে পারবেন।

আইডি কার্ড এর রিইস্যু ফি কত

আপনি যদি আপনার পুরাতন আইডি কার্ড অথবা হারানো আইডি কার্ড ফিরে পেতে চান তাহলে আপনাকে অনলাইন এর মাধ্যমে রিইস্যু আবেদন করে কিছুদিনের মধ্যেই নতুন আইডি কার্ড বের করতে পারবেন। সেক্ষেত্রে আপনাকে আইডি কার্ড রিইস্যু জন্য ফি জমা দিতে হবে। কত টাকা ফি জমা দিতে হবে অনেকেই জানেনা। তাহলে জেনে নিন ফি দেওয়ার কয়েকটি ক্যাটাগর ধাপ গুলো

  1. রিইস্যু করতে সাধারণ ফি ২৩০ টাকা।
  2. তারপর রিইস্যু জুরুরি ফি ৩৪৫ টাকা। 
  3. অতি জরুরি ভাবে করলে ভ্যাট সহ ৫৭৫ টাকা।

পুরাতন ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড

আপনি যদি পুরাতন ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড করতে চান তাহলে আমাদের উপরে নিয়মগুলো ফলো করে প্রথমে আপনাকে রিইস্যু আবেদন করতে হবে। এবং রিইস্যু জন্য আবেদন করতে চাইলে প্রমাণপত্র হিসেবে আপনাকে থানায় জিডি করতে হবে। আপনি হারানোর আইডি কার্ড তোলার একই নিয়মে পুরাতন ভোটার আইডি কার্ড ফি এবং প্রমানপত্র জমা দিয়ে  ডাউনলোড করতে পারবেন।

ভোটার নাম্বার দিয়ে আইডি কার্ড বের করার নিয়ম

ভোটার নাম্বার দিয়ে আপনি যদি আইডি কার্ড বের করতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাকে অনলাইনে আইডি কার্ড বের করতে হবে। অনেক সময় আমাদের হঠাৎ করে আইডি কার্ড হারিয়ে যায় অথবা আগুনে পুড়ে যায়। তখন আমাদের আইডি নাম্বার মনে থাকে না। আপনি যে ভোট দিয়েছেন সেই ভোটার নাম্বার দিয়ে অনলাইনে সার্চ করলে আপনি ভোটার আইডি কার্ড বের করতে পারবেন। আপনি ইউনিয়ন অফিসে ভোটার তালিকায় আপনার নাম খুঁজে বের করে নাম্বার সংগ্রহ করে সে নাম্বার দিয়ে অনলাইনে নির্বাচন কমিশন ওয়েবসাইটের মাধ্যমে আপনার আইডি কার্ড বের করতে পারবেন।

হারানো আইডি কার্ড উত্তোলনের আবেদন ফরম

আপনার যদি ভোটার আইডি কার্ড হারিয়ে যায় তাহলে অবশ্যই আপনাকে আইডি কার্ড উত্তোলন করতে হবে। সে ক্ষেত্রে আপনাকে থানায় জিঠি করার মাধ্যমে হারানো আইডি কার্ড উত্তোলন করতে পারবেন। প্রথমে আপনাকে একটি নির্বাচন কমিশন অফিসের দেওয়া ফরম পূরণ করতে হবে। আপনি গুগল ক্রমে আইডি কার্ড উত্তোলনের আবেদন ফরম লিখে সার্চ করলেই নির্বাচন কমিশন এর ওয়েবসাইট থেকে ফরম ডাউনলোড করতে পারবেন। 

Nid নাম্বার দিয়ে আইডি কার্ড বের করা

অনেকে আছে এনআইডি নাম্বার দিয়ে কিভাবে আইডি কার্ড বের করবে সম্পর্কে কোন তথ্য জানেনা। Nid নাম্বার দিয়ে মোবাইল দিয়েই আইডি কার্ড বের করতে পারবেন। প্রথমে আপনাকে নির্বাচন কমিশনের এর সাইট (www.nidservices.com) এই ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে হবে। তারপর আপনার এনআইডি নাম্বার দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করলে জন্ম তারিখ ও গোপন ক্যাপচা পূরণ করে সাবমিট বাটন ক্লিক করলেই আপনার সমস্ত তথ্য পেয়ে যাবেন। এবং আপনার জেলা উপজেলা বিভাগ এগুলো তথ্য পূরণ করলেই আপনার আইডি কার্ড অনলাইন থেকে বের করতে পারবেন।

এনআইডি কার্ড রিইস্যু হতে কতদিন সময় লাগে

আপনি যদি এনআইডি কার্ড রিইস্যু করার জন্য আবেদন করে থাকেন তাহলে কতদিন পর আপনি আপনার এনআইডি কার্ড পাবেন সে সম্পর্কে জানতে চান। মূলত সরকারিভাবে এন আই ডি কার্ড রিইস্যু হতে ৭ থেকে ১৪ দিন সময় লাগে।

শেষ কথা

আপনারা অনেকই হারানো ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড করার নিয়ম খুঁজতেছিলেন। আমরা এই পোষ্টের মাধ্যমে হারানো আইডি কার্ড কিভাবে ডাউনলোড করবেন ছবিসহ নিয়ম সম্পর্কে জানিয়েছি। আমরা এই পোষ্টের মাধ্যমে সঠিক ভাবে তথ্য প্রদান করেছি। আশা করি. আপনি আমাদের সম্পূর্ণ পোষ্ট পড়েছেন এবং আইডি কার্ড সম্পর্কে বিভিন্ন তথ্য জেনে উপকৃত হয়েছেন। আমাদের দেওয়া পোষ্ট পড়ে ভালো লাগলে অবশ্যই শেয়ার করে রাখুন। ধন্যবাদ

Price Fact
Price Fact
Articles: 77

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *